নিউজ আপডেট
ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাব কাটেনি
পৌনে তিন কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎ–বিচ্ছিন্ন
১৯ জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে ৩৭ লাখ মানুষ
বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হেনেছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় রেমাল
ঝুঁকিতে ৮৪ লাখ মানুষ, নারী ও শিশুর সংখ্যাই বেশি
ভারী বৃষ্টি-জোয়ারের পানি, তিনজনের মৃত্যু
কত টাকা পেল কলকাতা
৭১ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে রাজধানীতে,চলতে পারে সারা দিনই
এখনকার শৈশব মোবাইলে সীমাবদ্ধ!
ডাক্তার হতে হলে ১৩/১৪ ঘন্টা মিনিমাম পড়তেই হয়
৯০% হাজী হজ্বের সওয়ার নষ্ট করে ফেলে!
ব্যবসায়ী দম্পতিসহ তিনজনের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা
আইজিপি বেনজীর আহমেদের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ
আজিজের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা
ইরানের প্রেসিডেন্টের খোঁজে চলছে ব্যাপক তল্লাশি অভিযান
৩০ জন স্কুলছাত্রকে বিকৃত যৌন নিপীড়ন করেছেন এক শিক্ষক
ইবিতে বিবস্ত্র করে র‍্যাগিং
৪৮ ঘণ্টার হিট অ্যালার্ট জারি
আপনি আমরা কেউ হতাশার ঊর্ধ্বে নয়
মিলছে না টাকা,আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক/ শাখা থেকে শাখায় ঘুরছেন গ্রাহকরা
গণহত্যা চালানোর মধ্যেই ইসরায়েলে শত কোটি ডলারের অস্ত্র পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
১৫৩ রোহিঙ্গার জন্মনিবন্ধন
রিজার্ভ কমে ১৩ বিলিয়ন ডলারের নিচে
কাদের মির্জার বিরুদ্ধে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ
নিহত তানাজ জিপিএ-৫ পেয়েছে, পরিবারে কান্নার রোল
এমপি’র জিহ্বা কাটার হুমকি দিলেন আওয়ামী লীগ নেতা
স্ট্রেচারে পড়ে ছিল মায়ের নিথর দেহ, বুকের ওপর শুয়ে কাঁদছিল দেড় বছরের শিশুটি
বিদেশি ঋণ পরিশোধে চাপে সরকার
জরুরি ব্যবস্থা নিতে আইসিজেতে আবেদন দক্ষিণ আফ্রিকার
ধারাবাহিকতায় আজকের এ-ই চিকিৎসক মিলন মেলা
দৈনিক আয় করতে পারবেন ২ থেকে ৩ হাজার টাকা
প্রভাবশালীর নাতির কাণ্ড
প্রতি কেজি বেগুনের দাম আবারও শতক ছুঁয়েছে
মোমেনের সাবেক স্ত্রী নাসিম পারভীনের লাশ উদ্ধার
আম্মার দোয়ার আমি চোখ এর ডাক্তার
দেশে বেকারের সংখ্যা ২৫ লাখ ৯০ হাজার
স্ত্রীকে ভিডিও কলে রেখে স্বামীর আত্মহত্যা
রেমিট্যান্স নিম্নগতি চাপে রিজার্ভ
রাজধানীতে ৩৬ মিলিমিটার বৃষ্টি, ৫৯ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া
প্রেমিকের কাছ থেকে প্রেমিকাকে ছিনিয়ে নিয়ে ধর্ষণ
বাকৃবিতে ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা শিক্ষক
হামাসের রকেট হামলায় নিহত ৩ ইসরাইলি সেনা
বন্ধের প্রতিবাদে শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ, তীব্র যানজট
২১ ঘণ্টায়ও উদ্ধারকাজ শেষ হয়নি, তদন্ত কমিটি
তিন প্রকল্পে ব্যয় বেড়েছে
বন্ধ নাকি খোলা থাকবে, তা নিয়ে একধরনের বিভ্রান্তি রয়ে গেছে
পূর্ণিমা রানী ধর্ষণ মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার
দোয়ারাবাজারে ধর্ষণের পর এক কলেজছাত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা
চুয়াডাঙ্গায় ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড
কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের যথেষ্ট পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে, স্বীকার করে নিলো অ্যাস্ট্রাজেনেকা
জ্বালানি তেলের দাম এক থেকে আড়াই টাকা বাড়লো
আমার সহকারী ১০০ টাকা নিয়েছে,আমি কিছুই নেয়নিঃ ডাঃ তানিম
বেনজীর ও তার পরিবারের সম্পদের তথ্য চেয়ে বাংলাদেশ ব্যাংককে দুদকের চিঠি
উপজেলা নির্বাচন ব্যর্থ হলে গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রা ক্ষুণ্ন হতে পারে: সিইসি
যে কারণে নির্বাচন থেকে সরছেন না মন্ত্রী এমপি’র স্বজনরা
মানুষের জীবন দুর্বিষহ, কমেছে আয়
চার অঞ্চলে বজ্রবৃষ্টির আভাস
শ্যামবাজার ঘাটে লঞ্চে আগুন
ইরান হামলায় জড়িত নয় যুক্তরাষ্ট্র: ব্লিনকেন
অস্ত্রাগার দেখিয়ে ফেসবুকে লাইভ করায় পুলিশ সুপারকে অবসর
১০০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে বাংলাদেশের মাত্র ৩ টি
জানা গেল কীভাবে ব্যাংক লুট করতেন তিনি

তিন প্রকল্পে ব্যয় বেড়েছে

দফায় দফায় সময় বাড়িয়েও তিনটি জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের একটিরও কাজ শেষ করতে পারেনি চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)। এর ফলে খরচ বেড়েছে ৪ হাজার ৭০৬ কোটি টাকা। ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় সরকার এখন সব অর্থ অনুদান হিসেবে দিচ্ছে না। বাড়তি অর্থের একটি অংশ সরকারের কাছ থেকে ঋণ নিতে হচ্ছে সিডিএকে।

এই ঋণের পরিমাণ ১ হাজার ৬৬৫ কোটি টাকা। এর বিপরীতে সুদ দিতে হবে অন্তত ৭৬০ কোটি টাকা। এর বাইরে প্রকল্পগুলোর কাজ শেষ করতে সিডিএর নিজস্ব তহবিল থেকে খরচ ৭৫৩ কোটি টাকা। কিন্তু এই বিপুল পরিমাণ অর্থ পরিশোধ করা এবং জোগান দেওয়ার মতো আর্থিক সক্ষমতা সিডিএর নেই।

প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় সিডিএর অদক্ষতার কারণে এই বড় অঙ্কের ব্যয় বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের মতে, ঋণ পরিশোধ আর নিজস্ব তহবিল থেকে টাকা খরচ করতে গেলে সংস্থাটির আর্থিক শৃঙ্খলা ভেঙে পড়বে।

আমি মাত্র দায়িত্ব নিয়েছি। প্রকল্পের বিপরীতে ঋণের বিষয়ে খোঁজ নেব। এ জন্য দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলব। কেন ঋণ নিতে হয়েছে, তা–ও খোঁজ করব। আর ঋণ কীভাবে পরিশোধ করা যায়, তার সমাধান বের করতে সাবেক চেয়ারম্যানদের সঙ্গে বসব। প্রয়োজনে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রীর সঙ্গেও আলাপ করব।

সিডিএর নতুন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইউনুছ

সিডিএর তিন প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে জলাবদ্ধতা নিরসনের কাজ; এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজ এবং সড়ক নির্মাণ প্রকল্প। এসব প্রকল্পের কাজ চলছে ৭ থেকে ১১ বছর ধরে। মূল প্রকল্প অনুমোদনের সময় সব টাকা সরকার দিতে সম্মত হয়েছিল। কিন্তু প্রকল্প সংশোধনের পর বর্ধিত টাকার সব দিচ্ছে না সরকার।

সিডিএর এই প্রকল্পগুলোর সময় বেড়েছে তিন থেকে পাঁচ দফা। আর ব্যয় বেড়েছে একাধিকবার। এর আগে ২০১৪ সালে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নতুন খাল খনন প্রকল্পের ২৫ শতাংশ অর্থ নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয়ের শর্তে অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সে অর্থ দিতে না পারায় প্রকল্পের কাজ থমকে গিয়েছিল।

পরিকল্পনা কমিশন ও একনেক সভার কার্যবিবরণী এবং সিডিএর নথিপত্র পর্যালোচনা করে দেখা যায়, যেনতেনভাবে ও তড়িঘড়ি করে প্রকল্পগুলো নেওয়া হয়েছিল। এগুলো বাস্তবায়নের প্রস্তুতিতেও ঘাটতি ছিল। সম্ভাব্যতা সমীক্ষা যাচাই প্রতিবেদন করা হয় দায়সারাভাবে। তাই অনুমোদনের পর প্রকল্প বাস্তবায়নে বারবার হোঁচট খেতে হয়েছে সিডিএকে। নকশা পরিবর্তন করতে হয়। যুক্ত হয় নতুন নতুন কাজ। এতে সময় বৃদ্ধির সঙ্গে নির্মাণকাজের ব্যয়ও বেড়ে যায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিডিএর নতুন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইউনুছ প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি মাত্র দায়িত্ব নিয়েছি। প্রকল্পের বিপরীতে ঋণের বিষয়ে খোঁজ নেব। এ জন্য দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলব। কেন ঋণ নিতে হয়েছে, তা–ও খোঁজ করব। আর ঋণ কীভাবে পরিশোধ করা যায়, তার সমাধান বের করতে সাবেক চেয়ারম্যানদের সঙ্গে বসব। প্রয়োজনে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রীর সঙ্গেও আলাপ করব।’

চট্টগ্রাম নগরের যানজট নিরসনে ৩ হাজার ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে লালখান বাজার থেকে পতেঙ্গা পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের ব্যয়ও বেড়েছে।

তিন প্রকল্পে ব্যয় বেড়েছে

চট্টগ্রাম নগরের জলাবদ্ধতা নিরসনে ৫ হাজার ৬১৬ কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ সাড়ে ছয় বছরেও শেষ হয়নি। ব্যয় হয়েছে ৩ হাজার ৪৯৩ কোটি টাকা। এই বিপুল টাকা ব্যয়ের পরও চট্টগ্রাম নগরের জলাবদ্ধতা দূর হয়নি। গত বছরও বৃষ্টির পানিতে অন্তত ১২ বার ডুবেছিল নগর।

জলাবদ্ধতা নিরসনের এ প্রকল্প নিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) ২০২১ সালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এত বড় প্রকল্পের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা প্রতিবেদনটিও সঠিকভাবে করা হয়নি। যেটি করা হয়েছে, সেটিও অনেক ত্রুটিপূর্ণ।

এ ছাড়া নগরের সাগরিকা থেকে পতেঙ্গা পর্যন্ত সমুদ্রের পারে ১৬ কিলোমিটার দীর্ঘ নতুন সড়ক নির্মাণ (চট্টগ্রাম সিটি আউটার রিং রোড) প্রকল্পের মূল ব্যয় ছিল ৮৫৬ কোটি টাকা। তিন দফা প্রকল্প সংশোধনের পর প্রকল্প ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা।

চট্টগ্রাম নগরের যানজট নিরসনে ৩ হাজার ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে লালখান বাজার থেকে পতেঙ্গা পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের ব্যয়ও বেড়েছে।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং সিডিএর নথি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ‘অনুমানের’ ভিত্তিতে ‘তড়িঘড়ি’ করে এ প্রকল্প নেওয়া হয়েছিল। নকশা নিয়ে বন্দর কর্তৃপক্ষ, সিটি করপোরেশন ও পুলিশের আপত্তি ছিল। পরে অন্তত তিন দফা নকশা পরিবর্তন করতে হয়েছে। এতে খরচ বেড়েছে। 

শুরুতে খরচ কম দেখিয়ে তথ্য লুকিয়ে, অর্থাৎ গোঁজামিলের মাধ্যমে প্রকল্পের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। এতে প্রকল্প বাস্তবায়নের অর্থনৈতিক উপযোগিতা বেশি দেখানো হয়। এসবের ভিত্তিতে প্রকল্প অনুমোদন করিয়ে নেওয়া হয়। পরে লাগামছাড়া খরচ বাড়ানো হয়। এটি অত্যন্ত খারাপ সংস্কৃতি।

পরিবহন বিশেষজ্ঞ এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মো. সামছুল হক

গত বছরের ১৪ নভেম্বর এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে মূল কাজ পুরোপুরি শেষ না হওয়ায় এখনো গাড়ি চলাচল শুরু হয়নি।

পরিবহন বিশেষজ্ঞ এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মো. সামছুল হক সম্প্রতি প্রথম আলোকে বলেন, শুরুতে খরচ কম দেখিয়ে তথ্য লুকিয়ে, অর্থাৎ গোঁজামিলের মাধ্যমে প্রকল্পের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। এতে প্রকল্প বাস্তবায়নের অর্থনৈতিক উপযোগিতা বেশি দেখানো হয়। এসবের ভিত্তিতে প্রকল্প অনুমোদন করিয়ে নেওয়া হয়। পরে লাগামছাড়া খরচ বাড়ানো হয়। এটি অত্যন্ত খারাপ সংস্কৃতি।

সিডিএর প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস প্রথম আলোকে বলেন, জমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণ এবং নির্মাণসামগ্রীর খরচ বেড়ে যাওয়ায় প্রকল্পগুলোর ব্যয় বেড়েছে। এই বাড়তি অর্থ ঋণ ও সিডিএর নিজস্ব তহবিল থেকে খরচের শর্তে সংশোধিত ডিপিপি অনুমোদন দিয়েছে সরকার। তবে অর্থনৈতিক পরিস্থিতির উন্নতি হলে ঋণ মওকুফের জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ জানানো হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নে সক্ষমতার ঘাটতি, কার্যকরভাবে যাচাই-বাছাই না করে প্রকল্প নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

সিডিএর আয়ের মূল উৎস দোকানভাড়া, সঞ্চয় তহবিল থেকে পাওয়া সুদ, ভবন নির্মাণ অনুমোদন ফি, প্লট-ফ্ল্যাট ও দোকান হস্তান্তর ফি, প্লট-ফ্ল্যাট বিক্রির টাকা।

কিস্তি শোধ করা নিয়ে দুশ্চিন্তা

সংস্থাটির বর্তমান যে আর্থিক অবস্থা, তাতে এই বিপুল পরিমাণ অর্থ শোধ করা কার্যত অসম্ভব বলে জানান কর্মকর্তারা। তিন প্রকল্পের বিপরীতে দেওয়া ১ হাজার ৬৬৫ কোটি টাকার ঋণের বিপরীতে সুদ পরিশোধ করতে হবে অন্তত ৭৬০ কোটি টাকা। সুদ-আসলসহ ২ হাজার ৪২৫ কোটি টাকা দিতে হবে ২০ বছরের মধ্যে। অর্থাৎ বছরে গড়ে পরিশোধ করতে হবে ১২১ কোটি টাকা।

সিডিএর আয়ের মূল উৎস দোকানভাড়া, সঞ্চয় তহবিল থেকে পাওয়া সুদ, ভবন নির্মাণ অনুমোদন ফি, প্লট-ফ্ল্যাট ও দোকান হস্তান্তর ফি, প্লট-ফ্ল্যাট বিক্রির টাকা।

সিডিএর হিসাব বিভাগের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, প্রকল্পগুলোর বিপরীতে যে ঋণ দেওয়া হচ্ছে, তা পরিশোধের সক্ষমতা সিডিএর নেই। সিডিএর বর্তমান যে আর্থিক অবস্থা, তাতে ঋণ পরিশোধের জন্য সুদসহ যে টাকা আসবে, তা ১০০ বছরেও পরিশোধ করা সম্ভব নয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইপিডি) উপদেষ্টা ও নগর–পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক আকতার মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, সিডিএর যে আর্থিক অবস্থা, তাতে স্পষ্ট, এই বিপুল অর্থের ঋণ পরিশোধ করার মতো সক্ষমতা তাদের নেই। এখন প্রকল্প ব্যয় মেটাতে গেলে আর ঋণ পরিশোধ করতে হলে সংস্থাটির আর্থিক শৃঙ্খলা ভেঙে পড়বে।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের সাবেক এই সভাপতি বলেন, মাঝপর্যায়ে এসে প্রকল্পগুলোর সময় বৃদ্ধি করা হয়। নকশা পরিবর্তন করতে হয়। এতে নির্মাণ ব্যয়ও বেড়ে যায়। এটি প্রকল্প বাস্তবায়নে অদক্ষতা ছাড়া আর কিছুই নয়।

সিডিএর যে আর্থিক অবস্থা, তাতে স্পষ্ট, এই বিপুল অর্থের ঋণ পরিশোধ করার মতো সক্ষমতা তাদের নেই। এখন প্রকল্প ব্যয় মেটাতে গেলে আর ঋণ পরিশোধ করতে হলে সংস্থাটির আর্থিক শৃঙ্খলা ভেঙে পড়বে।

ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইপিডি) উপদেষ্টা ও নগর–পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক আকতার মাহমুদ

Please follow and like us:
0
fb-share-icon20
Tweet 20
Pin Share20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back To Top

Enjoy this blog? Please spread the word :)

Facebook20
YouTube20
Instagram20
20